ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে - যেসকল খাবার - ইলেক্ট্রোলাইট খেলে কি +
ঢাকা 5:07 am, Thursday, 20 June 2024

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে যেসকল খাবার

শুভ শাকিল
  • আপডেট সময় : 03:10:42 am, Saturday, 8 April 2023 609 বার পড়া হয়েছে

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে যেসকল খাবার

দেহের কার্যাবলী ও সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে ইলেক্ট্রোলাইট অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

তবে এই বিষয়টাকে নিয়ে এর সম্পর্কেও আগেই একটু জেনে নেওয়া যায়।

ইলেক্ট্রোলাইট কী?

ইনসাইডার ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনের যুক্তরাষ্ট্রের পুষ্টিবিদ এবং কেলিজোন্স নিউট্রিশন ডটকম’য়ের প্রতিষ্ঠাতা কেলি জোন্স বলেছেন, “ইলেক্ট্রোলাইট শরীরে পানির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, যা স্নায়ুর প্রতিক্রিয়া থেকেই শুরু করে পেশির সংকোচন প্রসারণ পর্যন্ত সব কিছুতেই সহায়তা করে।” দেহের ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি দেখা দেওয়া খুবই সহজ বিষয়। যেমন- ব্যায়ামের ফলে হওয়া ঘাম এবং  বমি বা ডায়রিয়ার কারণে হওয়া এবং ক্লান্তিভাব ইত্যাদি এর ঘাটতির লক্ষণ। এই ঘাটতির ফলে পেশিতেই টান, ব্যথা, এবং দুর্বলতা, হৃদগতিতে অসঙ্গতি, পক্ষাঘাত এমনকি গুরুতর পর্যায়ের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। কয়েকটা ইলেক্ট্রোলাইটের মধ্যেই সোডিয়াম  এবং পটাশিয়াম বেশি গুরুত্বপূর্ণ। জোন্স বলেন, “এগুলো দেহের ভেতরে এবং বাইরের কোষের তরলের ভারসাম্য রক্ষায় অনেক সহায়তা করে। দেহকে আর্দ্র রাখে।অন্যান্য ইলেক্ট্রোলাইটের মধ্যে রয়েছে: ক্লোরাইড, এবং ফসফরাস, ক্যালসিয়াম এবং  ম্যাগনেসিয়াম।পরিশ্রমের ফলে শরীর থেকে যে ঘামের সঙ্গে প্রচুর সোডিয়াম বের হয়ে যায়। সেই একই কারণে যারা বমি করছে এবং শ্লেষ্মায় ভোগার ফলে ক্লান্তি অনুভব করছেন তাদের ক্ষেত্রেও এটি প্রয়োজ্য। দেহের ইলেক্ট্রোলাইটের চাহিদা অনেক পূরণ করে এই ক্লান্তিভাব কমানো যায়।

ইলেক্ট্রোলাইট পাওয়ার উপায়

খাবারের মাধ্যমে নানানভাবেই ও ইলেক্ট্রোলাইট পাওয়া যায়। এখানে সহজলভ্য কয়েকটি খাবার সম্পর্কে আজ জানানো হল।

ডাবের পানি: এক কাপ ডাবের পানিতে রয়েছে মাএ ৩৫০ মি.গ্রা. পটাশিয়াম যা দৈনিক চাহিদার মাএ ১৩ শতাংশ পূরণ করে। হাতের কাছেই পাওয়া যায় বলে বোতলের পানির বিকল্প হিসেবেও এটি পান করা যায়।

একটা সাধারণ মাপের কলায় মাএ ৪২২ মি.গ্রা. পটাসিয়াম থাকে। এতেই প্রোটিনের মাত্রা বাড়াতেই সঙ্গে বাদামের মাখন

এবং আঁশের চাহিদা পূরণে ওটমিল খাওয়া যেতেই পারে।

দুধের তৈরি জন্য খাবার: ক্যালসিয়াম এবং সাথে সোডিয়ামের ভালো উৎস। ১০০ মি.লি. দুধে ভেতরে ১৯৯ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম এবং  ২৮১ মি.গ্রা. পটাসিয়াম থাকে।

এক আউন্স পনিরে ৩৩৬ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম ও ২৬.১ মিগ্রা সোডিয়াম পাওয়া যায়।

এছাড়াও সবুজ সবজি, এবং মটর, সয়া পণ্য, ও কাঠ বাদাম, তাহিনি ও বকচয় খনিজের ভালোই উৎস বলে জানান, জোন্স।

সোডিয়াম এবং  ক্যালসিয়ামের চাহিদা মেটাতেই কাঠ বাদাম স্বাদের রুটির সঙ্গেই এক টুকরা পনির খাওয়া যেতে পারে।

সাদা ও পোল্ট্রি মাংস: হাঁস মুরগির এবং মাংস ইলেক্ট্রোলাইট যোগাতে অনেকটাই  সহায়তা করে। এসব থেকেই মিলবে পটাসিয়াম এবং সোডিয়াম।

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে

নিউজটি শেয়ার করুন

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে যেসকল খাবার

আপডেট সময় : 03:10:42 am, Saturday, 8 April 2023

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে যেসকল খাবার

দেহের কার্যাবলী ও সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে ইলেক্ট্রোলাইট অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

তবে এই বিষয়টাকে নিয়ে এর সম্পর্কেও আগেই একটু জেনে নেওয়া যায়।

ইলেক্ট্রোলাইট কী?

ইনসাইডার ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনের যুক্তরাষ্ট্রের পুষ্টিবিদ এবং কেলিজোন্স নিউট্রিশন ডটকম’য়ের প্রতিষ্ঠাতা কেলি জোন্স বলেছেন, “ইলেক্ট্রোলাইট শরীরে পানির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, যা স্নায়ুর প্রতিক্রিয়া থেকেই শুরু করে পেশির সংকোচন প্রসারণ পর্যন্ত সব কিছুতেই সহায়তা করে।” দেহের ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি দেখা দেওয়া খুবই সহজ বিষয়। যেমন- ব্যায়ামের ফলে হওয়া ঘাম এবং  বমি বা ডায়রিয়ার কারণে হওয়া এবং ক্লান্তিভাব ইত্যাদি এর ঘাটতির লক্ষণ। এই ঘাটতির ফলে পেশিতেই টান, ব্যথা, এবং দুর্বলতা, হৃদগতিতে অসঙ্গতি, পক্ষাঘাত এমনকি গুরুতর পর্যায়ের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। কয়েকটা ইলেক্ট্রোলাইটের মধ্যেই সোডিয়াম  এবং পটাশিয়াম বেশি গুরুত্বপূর্ণ। জোন্স বলেন, “এগুলো দেহের ভেতরে এবং বাইরের কোষের তরলের ভারসাম্য রক্ষায় অনেক সহায়তা করে। দেহকে আর্দ্র রাখে।অন্যান্য ইলেক্ট্রোলাইটের মধ্যে রয়েছে: ক্লোরাইড, এবং ফসফরাস, ক্যালসিয়াম এবং  ম্যাগনেসিয়াম।পরিশ্রমের ফলে শরীর থেকে যে ঘামের সঙ্গে প্রচুর সোডিয়াম বের হয়ে যায়। সেই একই কারণে যারা বমি করছে এবং শ্লেষ্মায় ভোগার ফলে ক্লান্তি অনুভব করছেন তাদের ক্ষেত্রেও এটি প্রয়োজ্য। দেহের ইলেক্ট্রোলাইটের চাহিদা অনেক পূরণ করে এই ক্লান্তিভাব কমানো যায়।

ইলেক্ট্রোলাইট পাওয়ার উপায়

খাবারের মাধ্যমে নানানভাবেই ও ইলেক্ট্রোলাইট পাওয়া যায়। এখানে সহজলভ্য কয়েকটি খাবার সম্পর্কে আজ জানানো হল।

ডাবের পানি: এক কাপ ডাবের পানিতে রয়েছে মাএ ৩৫০ মি.গ্রা. পটাশিয়াম যা দৈনিক চাহিদার মাএ ১৩ শতাংশ পূরণ করে। হাতের কাছেই পাওয়া যায় বলে বোতলের পানির বিকল্প হিসেবেও এটি পান করা যায়।

একটা সাধারণ মাপের কলায় মাএ ৪২২ মি.গ্রা. পটাসিয়াম থাকে। এতেই প্রোটিনের মাত্রা বাড়াতেই সঙ্গে বাদামের মাখন

এবং আঁশের চাহিদা পূরণে ওটমিল খাওয়া যেতেই পারে।

দুধের তৈরি জন্য খাবার: ক্যালসিয়াম এবং সাথে সোডিয়ামের ভালো উৎস। ১০০ মি.লি. দুধে ভেতরে ১৯৯ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম এবং  ২৮১ মি.গ্রা. পটাসিয়াম থাকে।

এক আউন্স পনিরে ৩৩৬ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম ও ২৬.১ মিগ্রা সোডিয়াম পাওয়া যায়।

এছাড়াও সবুজ সবজি, এবং মটর, সয়া পণ্য, ও কাঠ বাদাম, তাহিনি ও বকচয় খনিজের ভালোই উৎস বলে জানান, জোন্স।

সোডিয়াম এবং  ক্যালসিয়ামের চাহিদা মেটাতেই কাঠ বাদাম স্বাদের রুটির সঙ্গেই এক টুকরা পনির খাওয়া যেতে পারে।

সাদা ও পোল্ট্রি মাংস: হাঁস মুরগির এবং মাংস ইলেক্ট্রোলাইট যোগাতে অনেকটাই  সহায়তা করে। এসব থেকেই মিলবে পটাসিয়াম এবং সোডিয়াম।

ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি পূরণ করে